বুধবার, ০৬ জুলাই ২০২২, ০৬:১৮ অপরাহ্ন

এজলাস থেকে বেরিয়ে ধ’র্ষণ মা’মলার বাদীকে মা’রধ’র

প্রতিনিধির নাম / ১৫১ বার
আপডেট : বুধবার, ২৫ মে, ২০২২
এজলাস_থেকে_বেরিয়ে_ধ'র্ষণ_মা'মলার_বাদীকে_মা'রধ'র

মাদারীপুর জেলা প্রতিনিধি, নরসিংদী জার্নাল।। এজলাস থেকে বেরিয়ে ধ’র্ষণ মা’মলার বাদীকে মা’রধ’র

মাদারীপুরে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের এজলাস কক্ষের বাইরে ধ’র্ষণ মামলার আ’সামি হাতে হাতকড়া নিয়ে পুলিশের সামনেই বাদীর ওপর হামলা করার অভিযোগ উঠেছে। বুধবার (২৫ মে) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে মাদারীপুর জেলা ও দায়রা জজ আদালত ভবনের দ্বিতীয় তলায় এ হামলার ঘটনা ঘটে।

এতে ধ’র্ষণ মামলার বাদী ও তার স্বামী আহত হন। হামলার ঘটনার একটি ভিডিও ফুটেজ এই প্রতিবেদকের কাছে সংরক্ষিত আছে।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, কয়েক মাস আগে মাদারীপুরের কালকিনিতে কথিত দন্ত চিকিৎসক সাইদুর রহমান কিরণের কাছে চিকিৎসা নিতে যান এক গৃহবধূ। এরপর ওই গৃহবধূকে অচেতন করে ধ’র্ষণ করেন দন্ত চিকিৎসক। এ সময় ধ’র্ষণের ভিডিও চিত্র ধারণ করে রাখেন তিনি। সেই ভিডিও প্রকাশের ভয় দেখিয়ে কিরন ও তার দুই বন্ধু লাগাতার কয়েক মাস ধ’র্ষণ করেন।

পরে বাধ্য হয়ে গৃহবধূ তার স্বামীকে বিষয়টি জানান। এ নিয়ে কালকিনি থানায় একটি মামলা করেন নির্যাতিত গৃহবধূ। দন্ত চিকিৎসক সাইদুর রহমান কিরণ ও তার বন্ধু মেহেদী হাসান শিকদার, সোহাগ মোল্লাকে আ’সামি করা হয়।

প্রত্যক্ষদর্শী ও বাদী জানান, ধ’র্ষণ মামলার আ’সামি মেহেদী হাসান শিকদার বুধবার দুপুর ১২টার দিকে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে হাজিরা দিতে আসেন। পরে এজলাসের কক্ষ থেকে বের হওয়ার সময় মামলার ২ নং আসামি মেহেদী হাসান শিকদার হাতকড়া পরা অবস্থায় দরজার পাশে দাঁড়িয়ে থাকা বাদীর হাত ধরে টেনে নিচে ফেলে দেন এবং পেটে লাথি মারেন। এ সময় বাদীর স্বামী এগিয়ে এলে তাকেও আ’সামির স্বজন মামুন প্যাদা ও সোহাগ শিকদার মারধর করেন। বাদী ও তার পরিবারকে হ’ত্যার হুমকি দিয়ে চলে যান তারা।

ভুক্তভোগী বাদী বলেন, আ’সামি মেহেদী হাসান হাতকড়া পরা অবস্থায় পুলিশের সামনেই আমার ওপর হা’মলা চালায় ও পেটে লাথি মারে। আমার স্বামীকে আসামির ভাইয়েরা মারধর করে। আসামির ভাই মামুন প্যাদা আমাকে হুমকি দিয়ে বলে, যদি আমার ভাই জামিন না পায়, তোদের দেখে নেব।
মাদারীপুর আদালতের পুলিশ পরিদর্শক রমেশ চন্দ্র দাস বলেন, আ’সামি যখন এজলাস থেকে দরজা দিয়ে বের হয়, তখন বাদী ছবি তুলছিল। এ সময় আসামি বাদীকে মারার চেষ্টা করে। সঙ্গে পুলিশ থাকায় মারতে পারেনি।

এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ন বেআইনী এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ। তাসরিফ/নরসিংদী জার্নাল

Facebook Comments Box


এ জাতীয় আরো সংবাদ

error: Content is protected !!
error: Content is protected !!