শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ০৬:৫০ অপরাহ্ন

“ক.ঙ্কালসহ দুই নারী আটক, মূল হোতা পলাতক”

প্রতিনিধির নাম / ১২৯ বার
আপডেট : বৃহস্পতিবার, ২০ অক্টোবর, ২০২২
``ক.ঙ্কালসহ দুই নারী আটক, মূল হোতা পলাতক''

পঞ্চগড় প্রতিনিধি।। “ক.ঙ্কালসহ দুই নারী আটক, মূল হোতা পলাতক”।

পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জে মানবদেহের চারটি মাথার খুলিসহ ক.ঙ্কালের বিভিন্ন অংশের হাড়গোড় উদ্ধার করা হয়েছে। ডিবি পুলিশ দেবীগঞ্জ উপজেলার পামুলী ইউপির লক্ষ্মীরহাট ভূল্লিপাড়া এলাকা থেকে এসব উদ্ধার করে।

এ সময় ঙ্কাল চুরির ঘটনার মূল হোতা দেবীগঞ্জ উপজেলার দেবীডুবা ইউপির লক্ষ্মীরহাট ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের মৃ.ত আকিজউদ্দিনের ছেলে রিয়াজুল ইসলাম ও একই এলাকার নবা আলীর ছেলে রাজু ওরফে মেজাক পালিয়ে যায়। তবে রিয়াজুল ইসলামের স্ত্রী কমলা বানু পুতুল ও রাজুর স্ত্রী নাসিমাকে আটক করে।

বৃহস্পতিবার সকালে পঞ্চগড় পুলিশ সুপারের কার্যালয় চত্বরে প্রেস ব্রিফিংয়ে এসপি এস এম সিরাজুল হুদা কঙ্কাল উদ্ধারসহ বিভিন্ন বিষয়ে কথা বলেন।

পুলিশ জানায়, গত কয়েক মাসে পঞ্চগড়ের বোদা ও আটোয়ারী উপজেলার বিভিন্ন কবরস্থান থেকে ক.ঙ্কাল চুরির ঘটনা ঘটে। সংঘবন্ধ ক.ঙ্কাল চোর চক্রকে ধরতে কাজ করছিল পুলিশ। বুধবার রাতে গোপন খবরের ভিত্তিতে অভিযানে রিয়াজুল ইসলামের বাড়িতে দেবীগঞ্জ থানার ওসি মো. জামাল হোসেন ও জেলা ডিবির উপ-পরিদর্শক মো. মিজানুর রহমান মিজানের নেতৃত্বে অভিযান পরিচালনা করা হয়। পরে খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে এসব হাড়গোড় উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনায় জেলা ডিবির উপ-পরিদর্শক মো. মিজানুর রহমান মিজান বাদী হয়ে রিয়াজুল, রাজু, কমলা বানু, নাসিমাসহ অজ্ঞাতনামা ৪-৫জনকে আসামি করে দেবীগঞ্জ থানায় একটি মা.মলা দায়ের করেন।

মা.মলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ডিবির উপ-পরিদর্শক লিপন কুমার বসাক বলেন, মা.মলার গ্রে.ফতারকৃত আসামিদের রিমান্ডে নিয়ে কারা কিভাবে এই ঘটনায় জড়িত কারা মদদদাতা এসব বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ করা হবে। বৃহস্পতিবার দুপুরে আসামিদের আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

দেবীগঞ্জ থানা পুলিশের ওসি মো. জামাল হোসেন বলেন, ক.ঙ্কাল উদ্ধারসহ দুই নারীকে গ্.রেফতার করা হয়েছে। ডিবি পুলিশ মা.মলা দায়ের করেছে। অন্য আসামিদেরও গ্রে.ফতারে অভিযান চলছে।

পুলিশ সুপার এস এম সিরাজুল হুদা বলেন, কঙ্কাল চুরির ঘটনার মূল হোতা দেবীগঞ্জ উপজেলার দেবীডুবা ইউপির লক্ষ্মীরহাট ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের মৃ.ত আকিজউদ্দিনের ছেলে রিয়াজুল ইসলাম ও একই এলাকার নবা আলীর ছেলে রাজু ওরফে মেজাক পালিয়ে যায়। তবে রিয়াজুল ইসলামের স্ত্রী কমলা বানু পুতুলকে ও রাজুর স্ত্রী নাসিমাকে গ্রে.ফতার করে।

অভিযানে একটি ব্যাগের ভেতরে পলিথিনে মোড়ানো অবস্থায় ৪টি মাথার খুলি, ৪টি দাঁতের পাটি, ১৪টি নতম্ভ অংশের হাড়, ৪২টি হাত ও পায়ের হাড়, ৭৯টি বুক ও পাজরের হাড়, ৯০টি মেরুদণ্ডের ভাঙা হাড়, ৬০টি আঙ্গুলসহ দেহের বিভিন্ন অংশের হাড়সহ মোট ২৯৩টি হাড় উদ্ধার করা হয়। এসব ক.ঙ্কাল বিভিন্ন মেডিকেল শিক্ষার্থীদের গবেষণার কাজের ব্যবহৃত হয়। বিভিন্ন সময়ে চক্রটি কালোবাজারে এই ক.ঙ্কালগুলো বিক্রি করে থাকেন। আকারভেদের মূল্য প্রায় ১৬ থেকে বিশ হাজার ডলার। আগামীতে অভিযান এবং তদন্ত করে মূল হোতাদের আটকের জন্য কাজ করছে পুলিশ।

Facebook Comments Box


এ জাতীয় আরো সংবাদ